অবশেষে সিদ্ধান্ত নিলেন অপু বিশ্বাস

ঢাকাই চলচ্চিত্রের ‘বিউটি কুইন’খ্যাত অভিনেত্রী অপু বিশ্বাস। এক দশকের ক্যারিয়ারে
শতাধিক সিনেমায় অভিনয় করেছেন। উপহার দিয়েছেন ব্যবসাসফল সিনেমা। ওপার বাংলায় রয়েছে তার দর্শকপ্রিয়তা।যে কারণে বিভিন্ন সময় এই অভিনেত্রী ওপার বাংলায় বিভিন্ন স্টেজ শোয়ের আমন্ত্রণ পান।বছরের শুরুতেই এমন আমন্ত্রণ পেয়ে তিনি দ্বিধায় পড়ে যান। ব্যক্তিগত কিছু কাজ হাতে থাকায় সিদ্ধান্ত নিতে পারছিলেন না।তবে শেষ পর্যন্ত আমন্ত্রণ ফিরিয়ে দিতে পারেননি অপু বিশ্বাস।রাইজিংবিডির সঙ্গে আলাপকালে অপু বিশ্বাস বলেন, ‘অবশেষে সিদ্ধান্ত নিয়েই ফেললাম। আজ ১৫ জানুয়ারি শো হবে আসামে।

গতকাল সন্ধ্যায় কলকাতা এসেছি। আগামীকাল মেদেনিপুরে আরেকটি শোতে অংশ নেব।’অপু বিশ্বাসের সঙ্গে যাচ্ছেন কোরিওগ্রাফার ফ্লাই ফারুক। শো শেষ করে আগামী ১৭ তারিখ ঢাকা ফিরবেন এই অভিনেত্রী।কলকাতায় ‘শটকার্ট’ শিরোনামে একটি সিনেমায় অভিনয় করছেন অপু বিশ্বাস। এরই মধ্যেশুটিং শেষ হয়েছে। সিনেমার গল্প ও চিত্রনাট্য রচনা করেছেন জনপ্রিয় সংগীতশিল্পী নচিকেতা চক্রবর্তী। পরিচালনা করেছেন সুবীর মণ্ডল।

এতে অপুর বিপরীতে অভিনয় করেছেন ওপার বাংলার জনপ্রিয় অভিনেতা পরমব্রত চ্যাটার্জি।দেশে অপু অভিনীত ‘শ্বশুরবাড়ি জিন্দাবাদ’ মুক্তির অপেক্ষায় রয়েছে। দেবাশীষ বিশ্বাস পরিচালিত এই সিনেমায় অপু বিশ্বাসের বিপরীতে অভিনয় করেছেন বাপ্পি চৌধুরী।

মহানবী (সা:) যে খাবারগুলো খুব পছন্দ করতেন

প্রিয়নবী হযরত মুহাম্মদ (সা:) .-এর পছন্দের ১২টি খাবার ও তার গুণাবলী এখানে উল্লেখ করা হলো। এসব খাবার প্রিয়নবী (সা.) আহার করতেন। দেড় হাজার বছর পর আজকের বিজ্ঞান গবেষণা করে দেখেছে নবীজী (সা.) এর বিভিন্ন খাবারের গুণাগুণ ও উপাদান অত্যন্ত যথাযথ বলে উল্লেখ করা হয়েছে।

নবীজী (সা.) এর খাবারের মধ্যে রয়েছে বার্লি, খেজুর, ডুমুর, আঙ্গুর, মধু, তরমুজ, দুধ, মাশরুম, অলিভ অয়েল, ডালিম-বেদানা, ভিনেগার ও পানি। এসব খাবারের গুণাবলী এখানে উল্লেখ করা হলো।]

১. বার্লি (জাউ) : এটা জ্বরের জন্য এবং পেটের পীড়ায় উপকারী।

২. খেজুর : খেজুরের গুণাগুণ ও খাদ্যশক্তি অপরিসীম। খেজুরের খাদ্যশক্তি ও খনিজ লবণের উপাদান শরীল সতেজ রাখে। প্রিয়নবী (সা:) বলতেন, যে বাড়িতে খেজুর নেই সে বাড়িতে কোনো খাবার নেই। এমনকি প্রিয়নবী (সা:) সন্তান প্রসবের পর প্রসূতি মাকে খেজুর খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন।

৩. ডুমুর : ডুমুর অত্যন্ত পুষ্টিকর ও ভেষজগুণসম্পন্ন যাদের পাইলস ও কোষ্ঠকাঠিন্য আছে তাদের জন্য অত্যন্ত উপযোগী খাবার।

৪. আঙ্গুর : প্রিয়নবী (সা:) আঙ্গুর খেতে অত্যন্ত ভালো বাসতেন। আঙ্গুরের পুষ্টিগুণ ও খাদ্যগুণ অপরিসীম। এই খাবারের উচ্চ খাদ্য শক্তির কারণে এটা থেকে আমরা তাৎক্ষণিক এনার্জি পাই এবং এটা স্বাস্থ্যের জন্য উপকারী। আঙ্গুর কিডনির জন্য উপকারী এবং বাওয়েল মুভমেন্টে সহায়ক। যাদের আইবিএস বা ইরিটেবল বাওয়েল সিনড্রোম আছে তারা খেতে পারেন।

৫. মধু : মধুর নানা পুষ্টিগুণ ও ভেষজ গুণ রয়েছে। মধুকে বলা হয় খাবার, পানীয় ও ওষুধের সেরা। হালকা গরম পানির সঙ্গে মিশিয়ে মধু পান করা ডায়রিয়ার জন্য ভালো। খাবারে অরুচি, পাকস্থলীর সমস্যা, হেয়ার কন্ডিশনার ও মাউথ ওয়াশ হিসেবে উপকারী।

৬. তরমুজ : সব ধরনের তরমুজ স্বাস্থ্যের জন্য উপকারি। প্রিয়নবী (সা:) তরমুজ আহারকে গুরুত্ব দিতেন। যেসব গর্ভবর্তী মায়েরা তরমুজ আহার করেন তাদের সন্তান প্রসব সহজ হয়। তরমুজের পুষ্টি, খাদ্য ও ভেষজগুণ এখন সর্বজনবিদিত ও বৈজ্ঞানিক সত্য।

৭. দুধ : দুধের খাদ্যগুণ, পুষ্টিগুণ ও ভেষজগুণ বর্ণনাতীত। আজ থেকে দেড় হাজার বছর আগে বিজ্ঞান যখন অন্ধকারে তখন প্রিয়নবী (সা:) দুধ সম্পর্কে বলেন, দুধ হার্টের জন্য ভালো। দুধ পানে মেরুদ- সবল হয়, মস্তিষ্ক সুগঠিত হয় এবং দৃষ্টিশক্তি ও স্মৃতিশক্তি প্রখর হয়। আজকের বিজ্ঞানিরাও দুধকে আদর্শ খাবার হিসেবে ঘোষণা করেছেন এবং এর ক্যালসিয়াম ও ভিটামিন ডি অস্থিগঠনে সহায়ক।

৮. মাশরুম : আজ বিশ্ব জুড়ে মাশরুম একটি অত্যন্ত পুষ্টিকর খাবার এবং মাশরুম নিয়ে চলছে নানা গবেষণা। অথচ দেড় হাজার বছর আগে প্রিয়নবী (সা:) জানতেন মাশরুম চোখের জন্য ভালো। এটা বার্থ কন্ট্রোলে সহায়ক ও মাশরুমের ভেষজগুণের কারণে এটা নার্ভ শক্ত করে এবং শরীরের প্যারালাইসিস বা অকেজো হওয়ার প্রক্রিয়া রোধ করে।

৯. জলপাই তেল : অলিভ অয়েলের খাদ্য ও পুষ্টিগুণ অনেক। গবেষণায় দেখা গেছে অলিভ অয়েল ত্বক ও চুলের জন্য উপকারী এবং বয়স ধরে রাখার ক্ষেত্রে সহায়ক বা বুড়িয়ে যাওয়ার প্রক্রিয়া বিলম্বিত করে। এছাড়া অলিভ অয়েল পাকস্থলীর প্রদাহ নিরাময়ে সহায়ক।

১০. ডালিম-বেদানা : বেদানার পুষ্টিগুণ ও খাদ্যগুণের পাশাপাশি এটার ধর্মীয় একটি দিক আছে। প্রিয়নবী (সা:) বলেছেন, এটা আহারকারীদের শয়তান ও মন্দ চিন্তা থেকে বিরত রাখে।

১১. ভিনেগার : ভিনেগারের ভেষজ গুণ ও খাদ্যগুণ অপরিসীম। প্রিয়নবী (সা:) অলিভ অয়েলের সঙ্গে মিশিয়ে ভিনেগার খাওয়ার পরামর্শ দিয়েছেন। আজকের এই মর্ডান ও বিজ্ঞানের অভূতপূর্ব সাফল্যের যুগে বিশ্বের বড় বড় নামি-দামি রেস্টুরেন্টে বিশেষ করে এলিট ইটালিয়ান রেস্টুরেন্টে অভিল অয়েল ও ভিনেগার এক সঙ্গে মিশিয়ে পরিবেশন করা হয়।

১২. খাবার পানি : পানির অপর নাম জীবন। পানির ভেষজগুণ অপরিসীম। প্রিয়নবী (সা:) পানিকে পৃথিবীর সেরা ড্রিংক বা পানীয় হিসাবে উল্লেখ করেছেন। সৌন্দর্য চর্চা থেকে শুরু করে স্বাস্থ্য রক্ষায় চিকিৎসা বিজ্ঞানীরা আজ প্রচুর পানি পান করতে বলেন।

১৫ জানুয়ারি ২০২০, মালয়েশিয়ান রিংগিত বিনিময় রেট

প্রবাসী ভাইরা আজ ১৫ জানুয়ারি ২০২০ ইং, দেখে নিন আজকের মালয়েশিয়ান রিংগিত বিনিময় মূল্য। মনে রাখবেন, যেকোন সময় মুদ্রার বিনিময় মূল্য উঠা-নামা করতে পারে।প্রবাসী ভাইদের উদ্দেশে বলছি আপনারা বিনিময় মূল্য

(রেট) জেনে দেশে টাকা পাঠাতে পারেন। সেক্ষেত্রে আমাদের ওয়েব সাইট বা আপনার নিকটস্থ ব্যাংক হতে টাকার রেট জেনে নিতে পারেন। যখন বৈদেশিক মুদ্রার রেট বৃদ্ধি হয় তখন দেশে বৈদেশিক মুদ্রা পাঠালে বেশি টাকা পেতে পারেন।

আজ ১৫ জানুয়ারি MYR (মালয়েশিয়ান রিংগিত) 1 = 20.77 ৳ (বাংলাদেশ সময় সকাল ১০ টা, তথ্যটি ইনটারনেট থেকে নেওয়া হয়েছে)

গতকাল ১৪ জানুয়ারি MYR (মালয়েশিয়ান রিংগিত ছিল) 1 = 20.90 ৳

হুন্ডিতে রেমিটেন্স পাঠানো একটি অবৈধ পন্থা, এই পথে টাকা পাঠাবেন না। আপনারা ব্যাংকের মধ্যমে বাংলাদেশে টাকা পাঠান এতে আপনার টাকার গ্যারান্টি আছে, বাংলাদেশের রেমিটেন্স বাড়বে দেশের উপকার হবে। প্রতিদিন আপডেট পেতে আমাদের পেজে লাইক, কমেন্ট এবং শেয়ার করে এক্টিভ থাকুন। যে যেখানে আছেন নিরাপদে থাকুন, আনন্দময় হোক আপনার সারাদিন।

স্বর্ণ কেনার সময় যে বিষয়গুলো খেয়াল রাখবেন

সবাই প্রয়োজনে স্বর্ণ কেনেন। স্বর্ণ কেনাটা কেবলই নিছক খরচ নয়। বিপদে-আপদে টাকার চেয়েও বেশি কাজে আসে এটি। স্বর্ণের দাম দিনদিন বেড়েই চলেছে।তাই টাকা খরচ করে স্বর্ণ কেনার আগে কিছু বিষয় জানা জরুরি। কিন্তু স্বর্ণ কেনার সময় কীভাবে বুঝবেন আপনি ঠকছেন কি-না? এত দুর্মূল্য সম্পদে বিনিয়োগ করার আগে জেনে নিন যাবতীয় খুঁটিনাটি—
খাদ কেমন: সাধারণত ২৪ ক্যারেট স্বর্ণই খাঁটি। ২৪ ক্যারেট মানে ৯৯.৯ শতাংশ খাঁটি। কিন্তু

একেবারে খাঁটি স্বর্ণ দিয়ে গয়না হয় না, প্রয়োজন সামান্য খাদের। দোকানে সাধারণত ২২ ক্যারেট দিয়েই অলঙ্কার তৈরি হয়। ২২ ক্যারেট মানে ৯১.৬ শতাংশ খাঁটি স্বর্ণ।২১ ক্যারেটে থাকে ৮৭ শতাংশ, ১৮ ক্যারেটে থাকে ৭৫ শতাংশ। তবে ২২ এবং ২১ ক্যারেট দিয়েই বেশি গয়না তৈরি হয়।খাঁটি বোঝার উপায়: স্পেকট্রোমিটার দিয়ে মাপার পর স্বর্ণে খাদ থাকলে তা সহজেই ধরা পড়বে। যন্ত্রই বলে দেয় কত ক্যারেটের স্বর্ণ আপনাকে দেওয়া হয়েছে। তাই স্পেকট্রোমিটার

মেশিনে মেপে স্বর্ণের খাদ যাচাই করে তবেই কিনুন। সঙ্গে অবশ্যই দেখে নিন হলমার্ক। তাতে বিক্রির সময়ে খাদ বাদ যাবে না। কেবল মজুরিই বাদ যাবে।তৈরির ওপর ছাড়: মেকিং চার্জের ওপর বাড়তি ছাড় দেখিয়ে আপনাকে প্রলোভনে ফেলে স্বর্ণ ব্যবসায়ীরা। তাই কেনার আগে অবশ্যই জেনে নিন ছাড় সংক্রান্ত যাবতীয় তথ্য। কোন হিডেন চার্জ আছে কি-না, তা-ও জেনে নিন। দরদাম: প্রায় কাছাকাছি নকশার গয়না বিভিন্ন দোকানে বিভিন্ন দামের হতেই পারে। কারণ

হিসেবে স্বর্ণের মান আর মেকিং চার্জের যুক্তি দেখান ব্যবসায়ীরা। তাই বেশকিছু দোকানে আগে খোঁজ নিয়ে তবেই কিনুন সোনার গয়না।বিনিয়োগ: স্বর্ণ কেনা ‘ভালো ব্যবসা’ বটে। তবে সবটাই নির্ভর করে বাজারের ওঠা-নামার ওপর। তাই বিনিয়োগের উদ্দেশে স্বর্ণ কিনতে চাইলে অবশ্যই সে সম্পর্কে খোঁজ-খবর নিয়ে কিনুন। মতামত নিন বিশেষজ্ঞদের।মণি-মুক্তা: সোনার গয়নায় হিরা, রুবি, পান্না জাতীয় পাথরের কাজ থাকলে দেখতে ভালোইলাগে। সে ক্ষেত্রে দামও বেড়ে যায়। তবে পরে বিক্রি করতে গেলে মনের মতো দাম পাওয়া যায় না। তাই সোনার গয়নায় পাথর না থাকাই ভালো। স্বর্ণ কেনার সময় স্বর্ণের উপরেই বেশি জোর দিন। মূল্যবান পাথরের উপর নয়।

আবারও মিথিলাকে বিয়ের প্রস্তাব তাহসানের

বিনোদন জগতে এক সময়ের সবচেয়ে আলোচিত দম্পতি তাহসান-মিথিলা। গত বছরের অক্টোবরে তারা দু’জনে বিচ্ছেদের ঘোষণা দেন।আর ওই বছরের তাদের প্রায় ১১ বছরের সংসার জীবনের ইতি ঘটে। গত দুই বছর ধরে তারা দু’জনেই নিজেদের মধ্যকার সমস্যাগুলো সমাধানের চেষ্টা করেন। কিন্তু শেষ পর্যন্ত বোঝাপড়া না হওয়ায় দু’জনই বিচ্ছেদের সিদ্ধান্ত নেন।সম্প্রতি সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকের মাধ্যমে মিথিলাকে আবারও বিয়ের প্রস্তাব দিয়েছেন তাহসান।মিথিলা নিজেই ফেসবুকে এ খবর প্রকাশ করেছেন। যদিও এটা আদৌ ঘটেনি। ফেসবুকে একটি অ্যাপ ভাইরাল হয়েছে।

‘কোন সেলিব্রিটি আপনাকে ইসলামিক মতে বিয়ে করতে চায়?’ নামের ওই অ্যাপে ক্লিক
করলেই নির্দিষ্ট একজন সেলিব্রেটির নাম-বয়স-পেশাসহ বিয়ের প্রস্তাবটি পাওয়া যাচ্ছে।
তবে সেই প্রস্তাবটি তাহসানের কাছ থেকে নয়, মিথিলা ওই অ্যাপটির মাধ্যমেই বিয়ের প্রস্তাবটি পেয়েছেন। তাতে লেখা, ‘আসসালামু আলাইকুম, রাফিয়াথ (মিথিলার নামের প্রথম
অংশ)।

এই প্রপোজালের মাধ্যমে আমি আপনাকে বিয়ে করতে চাই, আমার জীবন বৃত্তান্ত
নিম্নরূপ : নাম : তাহসান, বয়স : ৩১, চাকুরি : অভিনেতা। আমার মনে হয় আমরা ২০১৮ সালের ২৬ এপ্রিল তারিখে বিয়ে করতে পারি।আর ওই অ্যাপের রেজাল্টটি মিথিলা নিজের ফেসবুকে শেয়ার করেন, ক্যাপশনে মিথিলা লেখেন, ‘আবারও! আর উনার বয়স ৩১ কেন, ২১ হবে না?’

বিনা পয়সায় শ্রমিক নেবে মালয়েশিয়া

এবার বাংলাদেশ থেকে বিনা খরচে শ্রমিক নেওয়ার বার্তা দিলেন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী…
বাংলাদেশ থেকে বিনা খরচে শ্রমিক নেয়ার ইঙ্গিত দিয়েছেন মালয়েশিয়ার মানবসম্পদমন্ত্রী এম কুলা সেগারান।৭ জানুয়ারি দেশটির এক দৈনিক পত্রিকায় বলা হয়েছে, মালয়েশিয়ায় মার্কিন বাণিজ্য নিষেধাজ্ঞার ঝুঁকি এড়ানোর অংশ হিসেবে বাংলাদেশ থেকে ‘শূন্য-ব্যয়ে কর্মী নিয়োগের প্রক্রিয়া চলছে।দেশটির মানবসম্পদ মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশের সাথে দ্বিপাক্ষিক আলোচনা চূড়ান্ত পর্যায়ে রয়েছে। নতুন চুক্তির শর্তগুলি নেপালের কর্মী নিয়োগের ক্ষেত্রে যে চুক্তি হয়েছে তার অনুরূপ চুক্তি হবে বাংলাদেশের সঙ্গে।

এদিকে বাংলাদেশের প্রবাসী কল্যাণ মন্ত্রী ইমরান আহমদ রোববার জানিয়েছেন, ব্যয় ও স্বচ্ছতা ব্যবস্থার সমাধান হওয়ার আগে সরকার মালয়েশিয়ায় শ্রমিক পাঠাবে না।একদিনের ব্যবধানে ৭ জানুয়ারি সোমবার বাংলাদেশ থেকে বিনা খরচে শ্রমিক নেওয়ার বার্তা দিলেন দেশটির মানবসম্পদমন্ত্রী।উল্লেখ্য, অবৈধ অভিবাসীদের বৈধ হওয়ার জন্য ২০১৭ সালে সুযোগ দেয় সরকার সরকার।

এটা শেষ হয় ২০১৮ সালের ৩০ আগস্ট। এতে বৈধ হওয়ার সুযোগ পেয়ে বহু বাংলাদেশি নিবন্ধিত হয়েও প্রতারণার শিকার হয়েছেন।এরপর ২০১৯ সালের ১ আগস্ট থেকে অবৈধ অভিবাসীদের নিজ দেশে ফিরতে সরকার ‘ব্যাক ফর গুড’ কর্মসূচি চালু করে। আর এ কর্মসূচি শেষ হয়েছে গত ৩১ ডিসেম্বর।

হজ্ব করতে গিয়ে দৃষ্টিশক্তি ফিরে পেলেন অন্ধ সুদানী মহিলা !

এবারের হজ্বের সফরে সুদানের একজন দৃষ্টি প্রতিবন্ধি বয়স্ক মহিলা আল্লাহর কুদরতে হঠাৎ দৃষ্টি শক্তি ফিরে পান।পবিত্র মক্কায় কাবা শরীফ দেখতে পেয়ে তার অশ্রু গদগদ কণ্ঠে আল্লাহর শোকরিয়া আদায় করার ভিডিও সামাজিক মাধ্যমে ছড়িতে পড়ে।ভিডিওতে দেখা যায়, মহিলাটি দৃষ্টি শক্তি ফিরে পেয়ে মহিলাটি আনন্দে আত্নহারা হয়ে পড়েছে। এবং কাবা শরীফ দেখতে পেয়ে মহান আল্লাহর দরবারে শোকরিয়া আদায় করছে।বয়স্ক মহিলাটি বলছেন, তিনি ইবতেদায়ী পড়ার সময় থেকে চোখে দেখতেন না। তার অনেক আশা ছিল, তিনি কুরআন শরীফ দেখে দেখে পড়বেন।

সেই মহিলাটির পাশে তার স্বামীকেও উপস্থিত দেখা গেছে।খ্রিস্টান ধর্মাবলম্বী ৮৫ বছর বয়সী কোরআনের হাফেজ, ১৫শ’ জন হাফেজেরও শিক্ষক!মিশরের ৮৫ বছরে এক খ্রিস্টান ব্যক্তি কোরআনের হাফেজ এবং দীর্ঘদিন যাবত কোরআন প্রশিক্ষণ দিয়ে আসছেন। এপর্যন্ত তিনি ১৫০০ অধিক মুসলিম শিশুকে কোরআন শিক্ষা দিয়েছেন।মিশরের কাপটিক-ইসলামী (খ্রিস্টান ও মুসলমান অধ্যুষিত এলাকা) প্রদেশর সমূহের

একটি অন্যতম প্রদেশ মিশরের ‘মিনিয়া’ প্রদেশ। এই প্রদেশের বেশ কয়েকটি শহর এবং
গ্রামে মুসলমানদের তুলনায় খ্রিস্টানদের সংখ্যা অধিক।এই প্রদেশের ‘তাহনান’ নামক একটি গ্রাম।সম্প্রতি এই গ্রামে খ্রিস্টান ও মুসলমানদের মধ্যে সং’ঘ’র্ষ হয়েছে। আর এর ফলে মিশরের মিডিয়ার শিরোনামে এই অজানা গ্রামের কথা উঠে আসে।খ্রিস্টান ও মুসলমানদের মধ্যে

সং’ঘ’র্ষ ছাড়াও বিভিন্ন কার্যক্রমে সংগঠিত হয়েছে, যার ফলে দুই গ্রুপের মধ্যে শান্তি স্থাপন হয়েছে এবং তাদের মধ্যে অন্তরঙ্গ বৃদ্ধি পেয়েছে।কর্মসমূহের মধ্যে অন্যতম হচ্ছে খ্রিস্টান বৃদ্ধার কোরআন প্রশিক্ষণ দেয়া।মিশরের ৮৫ বছরে খ্রিস্টান ‘ইয়াদ হানা শাকের’ কোরআনের হাফেজ এবং দীর্ঘদিন যাবত কোরআন প্রশিক্ষণ

দিয়ে আসছেন। ‘ইয়াদ আল আরেফ’ নামে প্রসিদ্ধ ইয়াদ শাকের। তিনি নিজে খ্রিস্টান এবং একটি গির্জায় কর্মরত রয়েছেন।ইয়াদ যুবক বয়সে কোরআন হেফজ করেন এবং তখন থেকেই কোরআন প্রশিক্ষণ দেন।এপর্যন্ত ১৫০০ জন মুসলিম শিক্ষার্থীকে কোরআন হেফজ প্রশিক্ষণ দিয়েছেন।গ্রামের গির্জার একটি রুমে তিনি থাকেন এবং তিনি একটি মকতব খানারও পরিচালক।

ইয়াদ হানা তার মকতব খানায় মুসলমানদের কোরআন প্রশিক্ষণ দেন এবং খ্রিস্টানদের
বাইবেল প্রশিক্ষণ দেন। এপর্যন্ত ১৫০০ জন মুসলিম শিশুকে কোরআন প্রশিক্ষণ দিয়েছেন এবং তারা সকলেই কোরআনের হাফেজ হয়েছেন।ইয়াদ হানা তার কোরআন শিক্ষার ব্যাপারে বলেন, আমার পিতা একজন খ্রিস্টান যাজক ছিলেন। মুসলমানদের বিভিন্ন (শোক) অনুষ্ঠানে তিনি বক্তৃতা প্রদান করতেন। তার বক্তৃতায় তিনি পবিত্র কোরআনের আয়াত ব্যক্ত করতেন এবং সেই সম্পর্কে আলোচনা করতেন। আমি আমার পিতার নিকট হতে কোরআন শিখি।

তিনি বলেন, যুবক বয়সে সরকারী চাকরি করার জন্য আমাকে প্রস্তাব দেয়া হয়। আমি সেই চাকরির প্রস্তাবকে ফিরিয়ে দেই এবং তখন থেকে সিদ্ধান্ত নেই, গ্রামের মানুষদের জন্য ধর্মীয়
শিক্ষা প্রদান করব। তাহনান গ্রামের গির্জার পাশে একটি রুম নির্মাণ করে এবং তখন থেকেই ঐ রুমে আরবি ভাষা, ইসলাম ও খ্রিস্টান ধর্মের শিক্ষা প্রশিক্ষণ দেন।মুসলিম শিশুদের কোরআন প্রশিক্ষণের উদ্দেশ্যের ব্যাপারে তিনি বলেন, আমি নিজে কোরআন শেখার পর সিদ্ধান্ত নেই, মুসলমানদের কোরআন শিক্ষা প্রদান করব।

আরব আমিরাতের দুবাইয়ে বৃষ্টির কারণে প্রায় ১৯০০ ট্রাফিক দুর্ঘটনা ঘটে !

বৃহস্পতিবার থেকে ভারী বৃষ্টির কারণে দুবাইতে প্রায় 1,880 ট্রাফিক দুর্ঘটনা ঘটেছে। এর মধ্যে ৫৫ টি দুর্ঘটনা মারাত্মক প্রকৃতির এবং বাকিগুলি ছিল সামান্য।বৃহস্পতিবার দুপুর ১২ টা থেকে শনিবার দুপুর সাড়ে ৩ টা পর্যন্ত দুবাই পুলিশের কমান্ড নিয়ন্ত্রণ কেন্দ্র জরুরি নম্বর ৯৯৯- নাম্বরে এ ৫১৭৪৯ টি কল এ ৯০১ নম্বরে ৫৫৬২ কল পেয়েছে ।

দুবাই পুলিশ ট্রাফিক বিভাগের মহাপরিচালক ব্রিগেডিয়ার সাইফ মাহির আল মাজরোয়ী সমস্ত গাড়িচালককে খারাপ আবহাওয়ার পরিস্থিতিতে সতর্কতার সাথে গাড়ি চালনার আহ্বান জানিয়ে ট্রাফিকের দিকনির্দেশ এবং লক্ষণগুলির পাশাপাশি আবহাওয়ার সংবাদের উপর গুরুত্বারোপ করেছেন। তিনি আরও বলেছে যে ধীরে ধীরে গাড়ি চালানো এমনকি রাস্তার পাশে গাড়ি থামানোও দুর্ঘটনার সংখ্যা হ্রাস করতে সহায়তা করতে পারে।

৫ দিনে ৫০০০ উটকে গু’লি করে মা,রলো অস্ট্রেলিয়া

অস্ট্রেলিয়ার দক্ষিণাঞ্চলীয় খরাপ্রবণ এলাকায় পানি স্বল্পতার জন্য ১০ হাজার উট মে’’রে ফেলার সিদ্ধান্ত নেয় দেশটির একটি স্থানীয় কর্তৃপক্ষ।কারণ বেশি পরিমাণে পানি খেয়ে ফেলছে উট। এ ছাড়া মিথেন গ্যাস সৃষ্টির পেছনেও দায়ী করা হয় এই প্রাণীকে।মঙ্গলবার কেনিয়াভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডেইলি নেশন এক প্রতিবেদন এই খবর দিয়েছে।স্থানীয়দের দাবি, পানির জন্য বিভিন্ন স্থানে হানা দিচ্ছে এই বন্য উটগুলো।

ঘরবাড়িসহ শহরের বিভিন্ন স্থাপনায় হামলে পড়ছে উটের বিশাল বহর।ফলে দেশটির দক্ষিণাঞ্চলের স্থানীয় সরকার কর্তৃপক্ষ আনানজু পিতজানৎজাতজারা ইয়ানকুনিৎজাতজারা ল্যান্ডস (এওয়াইপি) এই উট হ’’ত্যার জন্য সিদ্ধান্ত নেয়।এর মধ্যে ৫ হাজার উট মা’’রা হয়েছে। স্থানীয় বাসিন্দাদের হু’’মকি হয়ে দাঁড়ানোয় উটগুলো মেরে ফেলা হয়েছে বলে স্থানীয় কর্তৃপক্ষ জানিয়েছে। এর জন্য ভাড়া করা হয়েছিল প্রশিক্ষিত শুটারও। হেলিকপ্টার থেকে গু’’লি করে এসব উট হ’’ত্যা করা হয়।

অন্যদিকে দেশটির নিউ সাউথ ওয়েলস ও ভিক্টোরিয়া অঙ্গরাজ্যে সেপ্টেম্বর থেকে শুরু হওয়া
দাবানলে স্তন্যপায়ী প্রাণী, পাখি ও সরীসৃপ জাতের অন্তত ৪৮ কোটি প্রাণী প্রা’’ণ হারিয়েছে বলে আ’শঙ্কা করছেন সিডনি বিশ্ববিদ্যালয়ের বিশেষজ্ঞরা।

ভাইরাল হওয়া ছবিটি নিয়ে যা বললেন তাবিথ

সিটি করপোরেশন নির্বাচন নিয়ে রাজধানী ঢাকায় চলছে জমজমাট প্রচারণা। অভিযোগ-পাল্টা অভিযোগের মধ্যে প্রার্থীদের ব্যতিক্রমী খবর নিয়ে চলছে আলোচনা-সমালোচনা।ঢাকা উত্তরে আওয়ামী লীগ মনোনীত মেয়রপ্রার্থী আতিকুল ইসলামের চা বিক্রির খবর সম্প্রতি ভাইরাল হয়েছে। একই সঙ্গে সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়েছে বিএনপির প্রার্থী তাবিথ আউয়ালের হেলপার বেশে বাসের গেটে দাঁড়ানো একটি ছবি।

অনেকে বলছেন, সস্তা জনপ্রিয়তা পেতে প্রার্থীরা এমন কাজ করছেন। তবে সামাজিক যোগাযোগমাধ্যমে ঢাকা উত্তরে বিএনপি মনোনীত মেয়র প্রার্থীর যে ছবিটি ঘুরছে তা এবারের নির্বাচনের নয় বলে জানিয়েছেন তাবিথ আউয়াল নিজেই। ছবিটি নিয়ে অপপ্রচার না করারও দাবি জানিয়েছেন তিনি।তাবিথ বলেছেন, এই ছবিটি ২০১৫ সালের নির্বাচনের সময়ের। আর ওই নির্বাচনে তার প্রতিদ্বন্দ্বী ছিলেন প্রয়াত মেয়র আনিসুল হক।বুধবার নির্বাচনী প্রচারণা চালানোর সময় বিএনপির মেয়র প্রার্থী সাংবাদিকদের বলেন, ‘আমি জনগ‌ণের কা‌ছে যা‌চ্ছি।

ভোট চা‌চ্ছি। ব্যাপক সাড়া পা‌চ্ছি। জনগণ ভোট দি‌তে পারলে ধা‌নের শী‌ষের বিজয় নি‌শ্চিত। তবে আমার ব্যাপারে আমার একটা ছবি উঠে এসেছে সোশ্যাল মিডিয়ায়। পরিষ্কারভাবে দেখবেন ২০১৫ সালের নির্বাচনের প্রচারের একটি ছবি। বাসের জানালার বাইরে জনসংযোগ করেছিলাম। মানুষকে দেখার জন্য দাঁড়িয়েছিলাম। বাসের কোনো কন্ডাক্টর অথবা প্রচারের কোনো অংশগ্রহণ এই ছবিতে ছিল না।

ছবিটাকে অপব্যবহার করা হচ্ছে।’ এ সময় ছবিটি নিয়ে কোনো ধরনের অপপ্রচার না করার জন্য সবার প্রতি আহ্বান জানান তিনি।আতিকুল ইসলামের চা বানানোর মতো জনগণ‌কে আকৃষ্ট করতে তিনিও কিছু করবেন কি না?জানতে চাওয়া হয় তাবিথ আউয়ালের কাছে। জবাবে তিনি বলেন, ‘ওটা তার ব্যাপার। আমার প্রতিপক্ষ প্রচারের ক্ষেত্রে কিছু ব্যবস্থা করেছিলেন, ওনার প্রচারের ব্যাপারে কোনো কথা বলতে চাই না। উনি ভোটারদের যেভাবে আকৃষ্ট করতে পারেন, করবেন।’