‘আমি ভিপি নূরকে গুনি না, আর তুই তো কোথাকার সাংবাদিক’

ডব্লিউ নিউজের সম্পাদক সাগর চৌধুরীর উপর ভোলার বোরহানউদ্দিন উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও বড় মানিকা ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান জসিম উদ্দিন হায়দারের ছোট ছেলে নাবিল হায়দারের বিরুদ্ধে সাংবাদিককে মারধরের অভিযোগ উঠেছে।

মঙ্গলবার (৩১ মার্চ) সকালে বোরহানউদ্দিনে রাজমনি সিনেমা হলের সামনে মারধরের এ ঘটনা ঘটে।

মারধরের শিকার সাগর চৌধুরী জানান, তাকে নাবিল ফোন করে বাসা থেকে বড়দিন রাজমনি সিনেমার কাছে নিয়েই মারধর শুরু করে।

তিনি বলেন, নাবিল তার মোবাইল দিয়ে লাইভ করে বলে আমি নাকি তার মোবাইল নিয়েছি।

ভিডিওতে দেখা যায়, সাগরের জামার কলার ধরে তাকে মোবাইল চুরির অপবাদ দিচ্ছেন নাবিল।

সাগরের দাবি, ইউনিয়নের জেলেদের ১ মণ করে চাল দেওয়ার কথা, কিন্তু চাল দেওয়া হচ্ছে মাত্র ১৪-১৫ কেজি করে। বিষয়টা আমি উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তাকে (ইউএনও) জানাই এবং চেয়ারম্যানকে জিজ্ঞাসা করি কেন চাল কম দিচ্ছেন? যে কারণে বোরহানউদ্দিন বড় মানিকা ইউনিয়ন পরিষদের (ভোলা) চেয়ারম্যান জসিমউদ্দিন হায়দারের ছেলে নাবিল হায়দার আজকে আমাকে ডেকে নেয় দেখা করার জন্য। তারপর মারধর করে।

স্থানীয়সূত্রে জানা গেছে, ইউনিয়ন পরিষদ থেকে নাবিলকে রিকশায় করে কয়েক বস্তা চাল নিয়ে যেতে দেখেন সাগর। সাগরের দাবি, ওই ছবিও তিনি ইউএনওকে পাঠিয়েছেন।

মোহাম্মদ বশির গাজী বলেন, চারদিন আগে সাগর তাকে একটা ভিডিও দেখান। যেখানে দুই জেলে বলেন, তারা ১৪ কেজি করে চাল পেয়েছেন।

ওই জেলেদের কেনো চাল কম দেয়া হয়েছে, ইউপি চেয়ারম্যানের সচিবের কাছে জানতে চান ইউএনও। এরপর ইউপি চেয়ারম্যান জসিমউদ্দিন হয়দার আলী ওই দুই জেলেকে নিয়ে ইউএনওর কাছে আসেন।

ইউএনও বলেন, তারা আমার কাছে এসে জানান যে, সাগর তাদের ওই কথা শিখিয়ে দিয়েছেন বলার জন্য।

তবে নাবিল যে রিকশায় করে চাল নিয়েছেন এমন কোনো ছবি তার কাছে পাঠাও হয়নি বলে জানান ইউএনও।

নাবিল হায়দার ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের রাষ্ট্রবিজ্ঞান বিভাগের শিক্ষার্থী। তিনি ছাত্রলীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। এর আগে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ভিপি নুরুল হক নুরকে হত্যার হুমকি দেয়ার অভিযোগ আছে তার বিরুদ্ধে। ওই সময় নূর বিশ্ববিদ্যালয় প্রশাসনের কাছে এ বিষয়ে লিখিত অভিযোগও দিয়েছিলেন।

সাগরের দাবি, ভিপি নুরকে হত্যার হুমকি দেয়ার সেই ঘটনার ভিডিও দেখিয়ে নাবিল তাকে বলেছেন, আমি ভিপি নুরকে গুনি না, আর তুমি তো কোথাকার সাংবাদিক।

তিনি বলেন, একথা বলতে বলতে আমাকে প্রচণ্ড রকম মারধর করে এবং মোবাইল ছিনতাইকারী হিসেবে অপবাদ দেয়।

এ বিষয়ে জানার জন্য নাবিলের সঙ্গে যোগাযোগের চেষ্টা করে তাকে পাওয়া যায়নি। তার মোবাইল ফোনও বন্ধ পাওয়া গেছে। তার বাবা ইউপি চেয়ারম্যান জসিমউদ্দিন হায়দারের ফোন নম্বরটিও বন্ধ পাওয়া গেছে।

সাগর চৌধুরীর উপর সন্ত্রাসী হামলায় তীব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানিয়েছে ঢাকা সাংবাদিক ইউনিয়ন ও বাংলাদেশ অনলাইন প্রেসক্লাবসহ অন্যান্য সাংবাদিক সংগঠন। তারা এই ঘটনার মূলহোতা নাবিল সহ তার সন্ত্রাসী বাহিনীকে অবিলম্বে গ্রেফতার করে দৃষ্টান্তমূলক শাস্তি দাবি করছেন। সূত্র: সময় নিউজ টিভি

ঢাবি’র তিন শিক্ষার্থীর করোনা প্রতিরোধে দারুন উদ্যোগ নিলেন !

প্রাণঘাতী করোনাভাইরাস প্রতিরোধ ও সচেতনতা নিয়ে দেশব্যাপী সাধারন মানুষের মাঝে এক ধরনের আতঙ্ক, উদ্বেগ ও উৎকণ্ঠা বিরাজ করছে। ঠিক সে সময়ে ব্রাহ্মণবাড়িয়ায় অন্নদা উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রাক্তন শিক্ষার্থী এবং ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের বায়োকেমিস্ট বিভাগে অধ্যায়নরত তিন শিক্ষার্থী করোনাভাইরাস প্রতিরোধে হাত পরিষ্কার রাখার উপকরণ (হ্যান্ড স্যানিটাইজার) তৈরি করছেন।

তারা অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়নের রসায়ন বিভাগের ল্যাব ব্যবহার করে প্রায় দুই হাজার ছোট প্লাস্টিক বোতলে রাসায়নিক মিশ্রিত পানির মাধ্যমে বোতল গুলো প্রস্তত করছেন। তাদের এ কাজে অর্থনৈতিক ভাবে সহযোগিতা করছেন অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের শিক্ষকেরা।

এ বিষয়ে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অধ্যায়নরত বায়োকেমিস্ট বিভাগের শিক্ষার্থী মো. জাহিদ হোসেন বলেন, দেশের ক্রান্তিকালে সকল নাগরিকের এগিয়ে আসা উচিত। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয় বন্ধ ঘোষণা করা হয়ে আগামী ৩১ মার্চ পর্যন্ত। আমাদের হাতে তেমন কাজ নেই। ভাবলাম আমরা যেহেতু বায়োকেমিস্ট বিভাগের শিক্ষার্থী আমাদের হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরী করার পূর্ব অভিজ্ঞতা আছে। তাই বসে থাকতে চাইনি। আমার অপর দুই সহপাঠী মো. তারিকুল ইসলাম ও আসিফ ইকবালকে নিয়ে হ্যান্ড স্যানিটাইজার তৈরির পরিকল্পনা করি।

তিনি বলেন, আমাদের এই কাজে উৎসাহ দেন আমাদের প্রাক্তন বিদ্যাপীঠ অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদা নাজমিন ম্যাডাম সহ অন্যান্য শিক্ষকরা। আমরা আগামীকাল মঙ্গলবার (২৪ মার্চ) এই হ্যান্ড স্যানিটাইজার দরিদ্র সাধারণ মানুষের মাঝে বিতরণ করা হবে।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের অপর শিক্ষার্থী মো. তারিকুল ইসলাম জানান, বিপদে মানুষের পাশে থাকার প্রয়াস প্রতিটি সুনাগরিকের থাকা প্রয়োজন। আমরা আমাদের জায়গা থেকে যতটুকু পারছি করছি। আমরা দুই হাজার পিস রাসায়নিক মিশ্রিত হ্যান্ড স্যানিটাইজার প্লাস্টিক বোতল প্রস্তুত করেছি। আগামীকাল থেকে বিনামূল্যে দুই হাজার সাধারন মানুষের মাঝে বোতলগুলো বিতরণ করা হবে।

অন্নদা সরকারী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক ফরিদা নাজমিন জানান, বর্তমানে দেশে করোনাভাইরাস প্রকোপের কারণে দেশের প্রতিটি নাগরিক উদ্বিগ্ন। আমাদের প্রাক্তন ছাত্ররা এই মুহূর্তে কিছু একটা করার আগ্রহ প্রকাশ করলে আমরা তাদের উৎসাহ দেই। তাদের আর্থিক সার্পোট দেই। তাদের এই উদ্যোগকে সাধুবাদ জানাই। আগামীকাল সে গুলো ফুটপাত সহ সাধারন মানুষের মাঝে বিতরণ করা হবে। এতে সাধারণ মানুষ একটু হলেও উপকার পাবে।

বাইরে ঘুরছেন কেন, প্রশ্ন করতেই দুবাই প্রবাসী ম্যাজিস্ট্রেটকে মারতে গেলেন !

ঝিনাইদহের কালীগঞ্জ উপজেলার চাঁচড়া এলাকায় দুবাই প্রবাসী মিজানুর রহমান মিজানকে বাইরে ঘোরাঘুরি করতে দেখে এলাকাবাসী ফোন পেয়ে সেখানে অভিযানে যান নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সহকারী কমিশনার (ভূমি) ভূপালী সরকার।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও তার সাথে থাকা পুলিশের দুই সদস্যকে অকথ্য ভাষায় গালিগালাজ ও মারধর করতে উদ্যত হন প্রবাসী মিজানুর রহমান ও তার দুই ভাই।

শুক্রবার (২৩ মার্চ) এ ঘটনা ঘটে। পরিস্থিতি খারাপ হওয়ায় এলাকা থেকে চলে আসেন ভ্রাম্যমাণ আদালত। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ যাওয়ার আগেই ঘটনাস্থল থেকে পালিয়ে যায় চাচড়া গ্রামের মনতেজ শেখের ছেলে প্রবাসী মিজানুর রহমান মিজান ও তার দুই ভাই জাহিদ ওরফে কালু ও সাইদ হোসেন।

গ্রামবাসীরা জানায়, গত ৪/৫ দিন আগে দুবাই থেকে দেশে আসেন মিজান। তিনি আসার পর থেকে হোম কোয়ারেন্টাইনে না থেকে বাইরে ঘোরাঘুরি করতে থাকেন। এলাকার লোকজন তাকে বোঝালেও তিনি মানছেন না।

অভিযানের সাথে থাকা পুলিশের এএসআই লিটন আলী জানান, আমরা দুইজন এসিল্যান্ড স্যারের সাথে ভ্রাম্যমাণ আদালতে যাই। এরপর বিদেশ ফেরত ওই ব্যক্তিসহ তার দুই ভাই আমাদেরকে মারধর করার চেষ্টা করে। পরে থানা থেকে অতিরিক্ত পুলিশ এসে পরিস্থিতি শান্ত করে।

নির্বাহী ম্যাজিস্ট্রেট ও সরকারী কমিশনার (ভূমি) ভূপালী সরকার জানান, গত ৪/৫ দিন আগে দুবাই থেকে এসেছেন চাঁচড়া গ্রামের মিজানুর রহমান। আসার পর থেকে তিনি বাইরে ঘোরাঘুরি করছেন। এলাকাবাসীর কাছ থেকে এমন অভিযোগ পেয়ে তিনি শুক্রবার ওই গ্রামে যান। সেখানে গিয়ে তিনি মিজানুর রহমানকে বলেন আপনি বাইরে ঘোরাঘুরি করছেন কেন? তিনি তখন মসজিদে নামাজ পড়ার কথা বলেন। ওই ব্যক্তিকে বাড়িতে নামাজ পড়ার কথা বললে, তিনি সেটা মানেননি। তখন তার দাবি অনুযায়ী সরকারি আদেশ পালনে দেশে ফেরার কাগজ দেখানোর অনুরোধ করি। তিনি কাগজ না দেখিয়ে অকথ্য ভাষা ব্যবহার করেন। আমাদেরকে এক প্রকার লাঞ্ছিত করে। এরপর কাগজপত্র না দেখিয়ে খলিলুর রহমানকে তথ্য-দাতা ভেবে তাকে আমাদের সামনে মারতে উদ্যত হয় এবং পুলিশ ও আমার ওপর চড়াও হয়।

তিনি আরো জানান, এ সময় ইউএনও স্যার ও কালীগঞ্জ থানার ওসিকে বিষয়টি জানালে থানা থেকে অতিরিক্ত ফোর্স আসার আগেই আসামিরা পালিয়ে যায়। মোবাইল কোর্টে বিচার না হওয়ায় নিয়মিত মামলা করার জন্য নির্দেশ প্রদান করা হয়।

কালীগঞ্জ থানার ওসি মুহা: মাহাফুজুর রহমান মিয়া বলেন, বর্তমানে আসামিরা পলাতক আছে। তাদের গ্রেফতারের চেষ্টা করা হচ্ছে।

করোনায় আক্রান্ত মা ও ৩ ভাই-বোনের মৃত্যু, আরো ২ বোন হাসপাতালে !

বিশ্বব্যাপী ছড়িয়ে পড়া প্রাণঘাতী করোনায় ভাইরাস মৃত্যুর সংখ্যা বাড়ছে। এ ভাইরাসে বয়স্কদের মৃত্যু হচ্ছে, এমন ধারণা তৈরি হলেও এবার একই পরিবারে ৪ জনের মৃত্যুর ঘটনা ঘটেছে।

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সি অঙ্গরাজ্যের ওই পরিবারটিতে গত সপ্তাহে মারা যায় তিন জন। সবশেষ গেল বৃহস্পতিবার (১৯ মার্চ) আরেকজনের মৃত্যু হয়েছে বলে ওই পরিবারের আত্মীয়দের বরাত দিয়ে আন্তর্জাতিক গণমাধ্যমে খবর দেয়া হয়েছে।

বৃহস্পতিবার মারা যাওয়া ব্যক্তির নাম ভিনসেন্ট ফুসকো। এর আগে ভিনসেন্টের মা গ্রেস ফুসকো (৭৩) বুধবার রাতে মারা যান করোনায়। তার কয়েক ঘণ্টা আগে মারা যান তার বড় ভাই কারমিনে ফুসকো। এর আগে মারা যান আরেক ভাই।

ভিনসেন্টের ভিনসেন্টের ছোট বোন এলিজাবেথ গণমাধ্যমকে বলেন, ‘সবই ছিল অবিশ্বাস্য। মঙ্গলবার (১০ মার্চ) সকালে আমি ঘুম থেকে উঠি। তখন মা আমাকে ডেকে বলে, লিজ্জি, আমার ভালো লাগছে না। রিটারও একই অবস্থা। টনির অবস্থাও একই। তুমি কি আমাদের সাহায্য করতে পারবে?, আমি বললাম অবশ্যই মা’

তিনি জানান, ১০ মার্চ থেকে ১৯ মার্চ-এই নয় দিনে করোনা কেড়ে নিয়েছে এলিজাবেথের মা, দুই ভাই ও বোনের প্রাণ।

তার আরও দুই বোন হাসপাতালে ভর্তি আছেন এবং দুইজনের অবস্থা সংকটাপন্ন বলে জানিয়েছেন এলিজাবেথ।

খাদ্যমন্ত্রীর মেয়েকে ছুরি মারলেন তিন মুখোশধারী

বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের সার্জারি বিভাগের সহযোগী অধ্যাপক এবং খাদ্যমন্ত্রী সাধন চন্দ্র মজুমদারের মেয়ে কৃষ্ণা রুপা মজুমদারকে ছুরিকাঘাত করা হয়েছে।

শুক্রবার (২০ মার্চ) তিনজন মুখোশধারী ছুরিকাঘাত করে পালিয়ে যান বলে ক্ষুদেবার্তায় সময় সংবাদকে জানিয়েছেন কৃষ্ণা রুপা মজুমদার। তবে এই হামলাকে তিনি পূর্ব পরিকল্পিত বলে দাবি করেছেন। বর্তমানে তিনি রাজধানীর মিন্টু রোডে বাবার বাসাতেই আছেন।

বিস্তারিত জানার জন্য মুঠোফোনে কয়েকবার কল দেয়া হলেও তিনি তা রিসিভ করেননি।

তবে কৃষ্ণা রুপার সহকর্মী এবং বঙ্গবন্ধু মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের একজন অধ্যাপক সময় সংবাদকে জানিয়েছেন, শুক্রবার (২০ মার্চ) বিকেল তিনটার দিকে মিন্টো রেডে বাসার আশপাশেই এ ঘটনা ঘটে। এসময় তিনি রিকশায় ছিলেন। তিনজন মুখোশধারী তার রিকশা আটকে তাকে ছুরিকাঘাত করেন এবং তার মোবাইল ফোনটি নিয়ে যান।

উল্লেখ্য, গত বছরের মার্চে কৃষ্ণা মজুমদার রুপার স্বামী এবং বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিক্যাল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) ম্যাক্সিলোফেসিয়াল সার্জারি বিভাগের সহকারী অধ্যাপক ডা. রাজন কর্মকার মারা যান। রাত ১২টা পর্যন্ত একটি হাসপাতালে রোগীর অস্ত্রোপচার করে ইন্দিরা রোডের বাসায় যান রাজন। রোববার ভোর ৪টার দিকে রাজধানীর ফার্মগেটের ইন্দিরা রোডের বাসা থেকে রাজনকে তার পরিবারের লোকজন স্কয়ার হাসপাতালে নিয়ে গেলে কর্তব্যরত চিকিৎসক তাকে মৃত ঘোষণা করেন।

ভিসেরা পরীক্ষার প্রতিবেদনে বলা হয়, তার মৃত্যুর কারণ হার্ট অ্যাটাক। তবে রাজনের পরিবারের দাবি তাকে হত্যা করা হয়েছে।

কোয়ারেন্টাইনের জন্য প্রস্তুত হচ্ছে রাজউকের ‘কুঞ্জলতা’ !

উত্তরা ১৮ নম্বর সেক্টরের দিয়াবাড়ীতে রাজউক উত্তরা অ্যাপার্টমেন্ট প্রকল্পের মধ্যে কোয়ারেন্টাইন সেন্টার করার জন্য একটি কম্পাউন্ডে কাজ শুরু করেছে বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর তত্ত্বাবধানে একটি দল।কোয়ারেন্টাইনের জন্য ঠিক করা কুঞ্জলতা নামে ওই কম্পাউন্ডের ৪ টি ভবনে ৮৪ টি করে ফ্ল্যাট রয়েছে। মোট ৩৩৬ টি ফ্ল্যাট কোয়ারেন্টাইনের জন্য প্রস্তুত করা হচ্ছে।

শুক্রবার (২০ মার্চ) সকাল থেকেই সেখানে ধোয়া মোছা এবং আনুষঙ্গিক জিনিসপত্র আনতে শুরু করে সেনাবাহিনী। এতে সহায়তা করে রাজউকসহ অন্যান্য সংস্থা।

আইএসপিআর-এর পরিচালক লে. কর্নেল আব্দুল্লাহ ইবনে জায়েদ বলেন, স্ক্রিনিং করার পরে যারা সন্দেহভাজন, যাদের আলাদা করা প্রয়োজন তাদের আলাদা করে সেনাবাহিনীর কাছে দিয়ে দেবে। সেনাবাহিনী তাদের ডাটা এন্ট্রি করবে, এবং তাদেরকে এই কোয়ারেন্টাইন ক্যাম্পে নিয়ে যাবে। এখানে ওই সময়টুকুর মধ্যে তাদের চিকিৎসা, আহার এবং অন্যান্য সুবিধা প্রদান করবে।

সৌদি আরবের মক্কায় দুর্বৃত্তের ছু’রি’কাঘা’তে বাংলাদেশি নি’হ’ত !

সৌদি আরবের পবিত্র নগরী মক্কায় অজ্ঞাতদের ছু;রিকা;ঘা;তে মোজাম্মল হক নামে এক বাংলাদেশি যুবক নিহত হয়েছেন। দেশটির নাক্কাছার পাশে রুসাইপা নামক স্থানে একটি ক্যাপটেরিয়ার (কুলিন কর্ণার) ভেতরে এ হ;ত্যাকা;ণ্ডের ঘটনা ঘটে। জানা গেছে, গত ১৭ ফেব্রুয়ারি সকালে ফজরের নামাজের পরপর দোকানের মালিক ও কয়েকজন ক্রেতা আসলে দোকানটির ভেতরে দেখতে পায় শরীরের বিভিন্ন স্থানে ছু;রি;র

ক্ষতবিক্ষত দোকানের কর্মচারী মোজাম্মল হকের (২৭) লা;শ পড়ে আছে। খবর পেয়ে সৌদি পুলিশ এসে নিহতের লা;শ উ;দ্ধা;র করে নিয়ে যায়।প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, সকালে নাস্তা বিক্রি করার জন্য দোকানের সাঁটার সামান্য খোলা রেখে কাজ করার সময় ভোর রাতে কে বা কারা দোকানের ভেতরে ঢুকে এ খু;;নের ঘটনা ঘটায়।জানা গেছে, খুন হওয়া বাংলাদেশি পর্যটন জেলা কক্সবাজারের রামু উপজেলার জোয়ারগানালা ইউনিয়নের মাদরাসা গেট এলাকার দোকাদার সুলতান আহমদের প্রথম পুত্র।

নি;হ;ত মোজাম্মলের ছোট ভাই এনামুল হক জানান, পরিবার ও বৃদ্ধ বাবার দিকে তাকিয়ে গত ৯ মাস আগে আমার বড়ভাই সৌদি আরবে যান। ভিসা নিয়ে গেলেও ইকামা পাইনি। কয়েকবার টাকা দিলেও ইকামা নেওয়া সম্ভব না হওয়ায় অন্য লোকের মাধ্যমে নেওয়ার জন্য সৌদির ২০ হাজার রিয়াল দেন।এনামুল জানান, ইকামার জন্য ২০ হাজার রিয়াল যাকে দিয়েছিল সম্ভবত তার বাড়ি চট্টগ্রামের। তার সঙ্গে ঘটনার আগের দিন বেশ কথাকাটি ও ঝগড়া হয়। নিহতের লা;শ সৌদি আরবের মক্কা নগরীর একটি সরকারি হাসপাতালের ম;র্গে; রয়েছে।

এবার তিন হিন্দু যুবক একসঙ্গে ইসলাম ধর্ম গ্রহন করলেন !

ইসলাম শিক্ষা দেয় যে আল্লাহ দয়ালু, করুনাময়, এক ও অদ্বিতীয়। ইসলাম মানব জাতিকে
সঠিক পথ দেখায়। ইসলামী বিশ্বাস অনুসারে, আদম হতে শুরু করে আল্লাহ্ প্রেরিত সকল নবী ইসলামের বাণীই প্রচার করে গেছেন।যুগে যুগে বহু মানুষ ভিন্ন ধর্ম থেকে ইসলাম গ্রহন করেছেন। তারই ধারাবাহিকতায় এবার ময়মনসিংহে ৩ হিন্দু যুবক ইসলাম গ্রহন করেছেন।বৃহস্পতিবার (৬ ফেব্রুয়ারি) ময়মনসিংহের সিনিয়র জুডিসিয়াল ম্যাজিট্রেট সম্মুখে এফিডেবিটের মাধ্যমে হিন্দু থেকে ইসলাম গ্রহণ করেন তিন যুবক। তারা এখন ঢাকার একটিপ্রাইভেট কোম্পানীতে চাকরী করছে। কিছু দিনের মধ্যেই তারা গ্রামে ফিরে ৪০ দিনের চিল্লায় যাবে।ইসলাম গ্রহন করা ঐ তিন যুবক হলেন, উপজেলা রামগোপালপুর ইউনিয়নের পশ্চিম পাড়া গ্রামের অজয় চন্দ্র বর্মণের ছেলে হৃদয় চন্দ্র বর্মণ (১৯) বর্তমান নাম উসমান, দীলিপ চন্দ্র বর্মণের ছেলে প্রদীপ চন্দ্র বর্মণ (২১) বর্তমান নাম উমর ও শশী বর্মণের ছেলে অমল চন্দ্র বর্মণ (১৯) বর্তমান নাম আবু বক্কর।

এই তিন যুবকের সঙ্গে যোগাযোগ করলে তারা বলেন, ইসলাম মুক্তির ও শান্তির ধর্ম। দীর্ঘদিন ধরে ইসলাম ধর্মের বিভিন্ন বই পড়ে, ধর্মের প্রতি আকৃষ্ট হয়ে স্বইচ্ছায় ও স্বজ্ঞানে আদালতের মাধ্যমে ইসলাম ধর্ম করেছি এবং স্থানীয় এক মসজিদের ইমামের সম্মুখে ‘লা-ইলাহা ইল্লাহু মুহাম্মাদুর রাসুল্লাহ (সাঃ) পাঠ করে পবিত্র গ্রন্থ আল কোরআনের উপর বিশ্বাস স্থাপন করেছি। আল্লাহ তাআলা এই তিন যুবকের মত আরও অনেককে ইসলাম গ্রহন করার তাওফিক দান করুন। আমিন।

আরব আমিরাত – সৌদি আরবের প্রশংসায় পঞ্চমুখ ইভানকা ট্রাম্প !

নারীর অধিকার প্রতিষ্ঠায় উল্লেখযোগ্য সংস্কার পদক্ষেপ নেয়ায় সৌদি আরব ও সংযুক্ত আরব আমিরাতকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন ইভানকা ট্রাম্প।বিদেশ ভ্রমণে নারীদের অনুমোদন ও পুরুষ আত্মীয়দের অনুমতি ছাড়াই পাসপোর্ট ইস্যুতে আইনে পরিবর্তন এনেছে সৌদি আরব। নারী স্বাধীনতার এই অগ্রগামী পদক্ষেপের জন্য সৌদি আরবকে অভিনন্দন জানিয়েছেন তিনি। দুবাইতে রোববার নারী উদ্যোক্তা ও আঞ্চলিক নেতাদের এক সমাবেশে মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের এই কন্যা ও উপদেষ্টা বলেন, আমরা জানি, যখন নারীরা স্বাধীন থাকেন, তখন তারা সফল হন, পরিবারে সমৃদ্ধি ঘটে, সম্প্রদায়গুলো বিকশিত হয় ও রাষ্ট্রগুলোও আরও শক্তিশালী হয়।

এর আগে ২০১৮ সালে নারীদের গাড়ি চালানোর ওপর থেকে নিষেধাজ্ঞা তুলে নেয় সৌদি আরব। দেশটির ভিশন ২০৩০ সামনে রেখে এই পরিবর্তন আনা হয়েছে। মূলত তেল ও গ্যাসের ওপর থেকে নির্ভরশীলতা কমিয়ে অর্থনীতিতে আরও বৈচিত্র আনতে এসব পদক্ষেপ নিয়েছে সৌদি।এতে ব্যক্তিগত খাতের প্রবৃদ্ধি ও উদ্যোক্তা বাড়বে বলে মনে করা হচ্ছে। সিংহাসনের উত্তরসূরি মোহাম্মদ বিন সালমানের উত্থানের সঙ্গে সঙ্গে সৌদিতে এসব পরিবর্তন ঘটছে।কেবল সৌদি আরবই না, অন্যান্য আরব দেশের পরিবর্তনের দিকেও আভাস দিয়েছেন ট্রাম্প কন্যা।৩৮ বছর বয়সী এই নারী বলেন, কর্মক্ষেত্রে বৈষ;;ম্যের বি;;রুদ্ধে আইনপ্রণয়ন করেছে বাহরাইন।

কর্মক্ষেত্রে রাতে নারীদের কাজের সক্ষমতার ওপর বিধিনিষেধ তুলে নিয়েছে জর্ডান।
নারীদের ভূমি অধিকার বাড়িয়েছে মরোক্কো। আর গৃহ;;সহিংসতার বি;;রুদ্ধে নতুন আইন করেছে তিউনেশিয়া। তবে আরও বহু কাজ বাকি আছে বলে মনে করেন এই তিন সন্তানের জননী। ইভানকা বলেন, মধ্যপ্রাচ্যে বর্তমানে গড়ে একজন পুরুষের তুলনায় নারীর অধিকার অর্ধেক।

মহানবী (সা.) খেজুর ও দুধ দিয়ে সকালের নাস্তা করতেন !

আল্লাহ মহান। তাঁর দয়ার কারনেই এই সুন্দর পৃথিবীতে আমাদের প্রিয় নবী হজরত মোহাম্মদ
(সা.) এর আবির্ভাব ঘটেছিল। মুহাম্মাদ (সা) ঘৃণাভরে প্রত্যাখ্যান করেছিলেন আরাম ও সুখের জীবন। তিনি যেমন সাহসী ও অকুতোভয় ছিলেন, তেমনি ছিলেন কোমল মনের মানুষ। তাঁর ব্যাক্তিত্বের প্রভাবে ইসলামের বিস্তার হয়েছে। আমাদের নবী (সা.) -এর সকল কাজই আমাদের জন্য আদর্শ। নবী (সা.) এর ঘুম, খাওয়া, হাটা, চলা এই সকল বিষয়ের মাঝেই আমাদের জন্য রয়েছে উত্তম আদর্শ। মহানবী হজরত মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লাম প্রতিদিন সকালে সাতটি খেজুর ও দুধ দিয়ে নাস্তা করতেন। এমনকি তিনি তার নাস্তার এই মেনু কখনো পরিবর্তন করেননি। নবীর (সা.)

সাহাবারা নবীর (সা.) কাছে জানতে চেয়েছিলেন তিনি কেন প্রতিদিন সাতটি খেজুর ও দুধ দিয়ে নাস্তা করেন? তিনি বলেছিলেন, সাতটি খেজুর ও দুধ দিয়ে নাস্তা করা মস্তিষ্কের জন্য ভালো। এরপর সাহাবিরাও সাতটি খেজুর ও দুধ দিয়ে নাস্তা করতেন।এদিকে, বিজ্ঞানীরা গবেষণা করেছেন, কেন নবী (সা.) সাতটি খেজুর ও এক দুধ দিয়ে নাস্তা করেছেন। তারা গবেষণার ফলাফল হিসেবে যেটা পেয়েছেন সেটা হচ্ছে প্রতিদিন সকালে সাতটি খেজুর ও দুধ দিয়ে নাস্তা করলে মানুষের শরীরের হাইড্রোক্লোরিক অ্যাসিড ও এনজাইমগুলো দ্রুত কাজ করা শুরু করে। এতে করে মানুষের শরীর ভাল থাকে। বিজ্ঞানীরা তাদের গবেষণায় আরো পেয়েছে যে প্রতিদিন সকালে সাতটি খেজুর ও এক কাপ দুধ নিয়ে নাস্তা করলে মানুষের মস্তিষ্কের বুদ্ধিমত্তা বৃদ্ধি পায়। লিভার ভালো থাকে। ত্বক সুন্দর হয়। আল্লাহ তাআলা মুসলিম উম্মাহকে মুহাম্মাদ সাল্লাল্লাহু আলাইহি ওয়া সাল্লামের প্রতিটি সুন্নতের উপর আমল করার তাওফিক দান করুন। আমিন।